মারের ভয়ে মাথায় হেলমেট পরে পেঁয়াজ বিক্রি

আন্তর্জাতিক

Sharing is caring!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারতেও বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। দেশটিতে এখন পেঁয়াজের চেয়ে কম দামে পাওয়া যাচ্ছে আপেল। পেঁয়াজের দাম নিয়ে চরম সমস্যায় মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রাজ্যে সরকারের পক্ষ থেকে কম দামে সাধারণ মানুষের জন্য পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে। তবে কম দামে সীমিত পরিমাণ পেঁয়াজ বিক্রি করা হচ্ছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। তাই বিক্রির সময় যাতে জনরোষের শিকার হতে না হয়, সে জন্য মাথায় হেলমেট পরে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন কর্মীরা।
ভারতের বিহার রাজ্যের রাজধানী পাটনায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। ওই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোডের পর থেকে ইন্টারনেটে এ নিয়ে পড়ে গেছে হাসির রোল, চলছে ঠাট্টা-তামাশা। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ভাইরাল হচ্ছে।
এদিকে, কিছু দিন আগেও পেঁয়াজের কেজি ৬০ রুপি (ভারতীয় টাকা) দরে বিক্রি হয়েছে। এখন বিভিন্ন এলাকায় ১০০ রুপির বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।
বিহারের পাটনাতে স্টেট কো-অপারেটিভ মার্কেটিং ইউনিয়ন লিমিটেড প্রতি কেজি পেঁয়াজ মাত্র ৩৫ রুপি দরে বিক্রি করছে।
জানা গেছে, পেঁয়াজের অতিরিক্ত দাম বাড়ার কারণে বেশ সমস্যায় পড়েছে বিহার সরকার। তাই সরকারি উদ্যোগে কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। শনিবার সকালে স্টেট কো-অপারেটিভ মার্কেটিং ইউনিয়ন লিমিটেডের অফিসের সামনে সংস্থার কর্মীদের ভ্রাম্যমাণ গাড়ি থেকে পেঁয়াজ বিক্রি করতে দেখা গেছে। কিন্তু পেঁয়াজের জোগান কম থাকায় জনরোষ তৈরি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তারা। এ কারণে নিজেদের জীবনের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে মাথায় হেলমেট পরে কাজ করছেন সংস্থাটির কর্মীরা।

পেঁয়াজ কিনতে আসা লোজজনের ভিড় সামলানোর কাজে ব্যস্ত রোহিত কুমার নামের এক সরকারি কর্মী বলেন, নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের কাছে আবেদন জানানো হয়েছিল। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের জন্য কোনো নিরাপত্তারক্ষীর ব্যবস্থা করা হয়নি। তাই নিজেদের নিরাপত্তার কথা ভেবে আমরা হেলমেট পরে কাজ করছি।
তিনি আরও বলেন, গত শুক্রবার অন্য জেলায় পেঁয়াজ বিক্রির সময় হঠাৎ ক্ষেপে ওঠে স্থানীয় জনতা। এখানেই শেষ নয়, পরে তারা পেঁয়াজ বিক্রেতাদের লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুড়ে মারে। এতে অনেকে গুরুতর জখম হয়েছে। এ ঘটনার পরেও আমাদের কোনো নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে না। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই আমরা হেলমেট পরে কাজ করছি।

মণীষ নামে আরেকজন কর্মী বলেন, আমরা গাড়ি নিয়ে প্রতিটি পাড়া-মহল্লা ও কলোনিতে গিয়ে পেঁয়াজ বিক্রি করছি। সব এলাকাতেই কম দামের পেঁয়াজ কিনতে প্রচুর মানুষ ভিড় করছেন। ফলে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে হচ্ছে আমাদের।