পেঁয়াজের দাম কমলো কেজিতে ২৫ টাকা

অর্থনীতি

Sharing is caring!

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। এরই মধ্যে চট্টগ্রামভিত্তিক বিএসএম গ্রুপের ৭০০ টন ও ঢাকার মেঘনা গ্রুপের ৮০০ টন পেঁয়াজ খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারের আড়তে আসছে। পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারের আড়তগুলোতে প্রবেশ করছে। ফলে পেঁয়াজের বাজারে প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম প্রতি কেজিতে ২৫ টাকা কমেছে।

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) সকালে মেঘনা ও বিএসএম এই দুই শিল্পগ্রুপের ১৫০০ টন পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে খালাস হয়। এছাড়া আরও দুইটি জাহাজে প্রায় ৫৪ টনের বেশি পেঁয়াজ খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে।

জানা গেছে, খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে দুই দিন আগে মিয়ানমারের পেঁয়াজের কেজি ১৮০ টাকা ছিল। যা বর্তমানে ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সেই হিসেবে কেজিতে প্রায় ২০ টাকা কমেছে। তুরস্কের পেঁয়াজের কেজি ১৫০ টাকা ছিল, যা এখন বিক্রি হচ্ছে ১২৫ থেকে ১৩০ টাকায়। কেজিতে কমেছে ২৫ টাকা। চীনের পেঁয়াজ ১২৫ টাকা থেকে কমে এখন ৯৫ থেকে ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মিশরের পেঁয়াজ ১৫০ টাকা থেকে কমে এখন বিক্রি হচ্ছে ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা।

অবশ্য খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে প্রভাব পড়লেও চট্টগ্রামের খুচরা বাজারগুলোতে খুব একটা প্রভাব পড়েনি। খুচরা বাজারে এখনো পেঁয়াজ কেজি প্রতি ২০০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে নতুন করে যেসব পেঁয়াজ খাতুনগঞ্জের পাইকারি আড়তে ঢুকছে, তা এখনো খুচরা বাজারে আসেনি। আগের কেনা পেঁয়াজ এখনো অবিক্রিত রয়েছে। সেই পেঁয়াজ একটু বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। আর মানুষও কম কিনছে। ক্রেতারা সর্বোচ্চ হাফ কেজি করে পেঁয়াজ কিনছেন।

খাতুনগঞ্জ আড়তদার সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানান, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে খালাস হওয়া পেঁয়াজ এখন খাতুনগঞ্জের পাইকারি আড়তে প্রবেশ করছে। শুক্রবার পেঁয়াজ কেজিতে ২৫ টাকা কমেছে। ধীরে ধীরে পেঁয়াজের দাম আরও কমবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

চট্টগ্রামভিত্তিক বিএসএম গ্রুপের চেয়ারম্যান আবুল বশর চৌধুরী জানান, গত বৃহস্পতিবার রাতে বন্দর থেকে ছাড় নিয়ে ২০০ টন পেঁয়াজ ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন বাজারে পৌঁছেছে। শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) খালাস হয় ৫০০ টন পেঁয়াজ। আসার পথে রয়েছে আরও পেঁয়াজ। কিন্তু সরবরাহ দিতে গিয়ে মনে হয়েছে দেশে পেঁয়াজের চাহিদার তুলনায় সরবরাহে অনেক ফারাক। আমার বিশ্বাস ছোট থেকে বড় আমদানিকারকরা মিলে যদি নিয়মিত সরবরাহ বাড়ায় তাহলেই পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে আসবে।

চট্টগ্রাম বন্দর সূত্রে জানা গেছে, দেশের অন্যান্য শিল্পগ্রুপগুলোর মধ্যে সিটি গ্রুপের পেঁয়াজ আসবে রবিবার (১ ডিসেম্বর)। এস আলম গ্রুপের পেঁয়াজ ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ নাগাদ দেশে আসতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ডিসেম্বর থেকে নিয়মিত পেঁয়াজ আসা শুরু হবে।